Templates by BIGtheme NET
ব্রেকিং নিউজ
Home / আজকের আলোচিত স্বদেশ ও বিশ্ব সংবাদ ( সুপার ফাইভ) / আবেদ পুত্র ‘মার্কো’র মাথায় যত চুল, তার চেয়েও বেশী নারীর সাথে তিনি সহবাস করেছেন

আবেদ পুত্র ‘মার্কো’র মাথায় যত চুল, তার চেয়েও বেশী নারীর সাথে তিনি সহবাস করেছেন

নীলিমা তন্ময়/জননেতাঃ

16780254_10154689376878891_1389014657_n

মোকাররম হোসেন খান মার্কো, সমালোচিত এক নাম। দেশের রিয়েল এস্টেট  শিল্পের প্রতিনিধিত্বমুলক নেতৃত্বও তিনি। তবে সব কিছুকে ছাপিয়ে গেছে তাঁর নারী কেলেংকারীর অযাচিত শত শত  বহুমুখী কান্ডে। হ্যাঁ, তিনি দেশের বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ‘ব্র্যাক’ এর কর্ণধার স্যার ফজলে হোসেন আবেদ এর পুত্র। মা ছিলেন শিলু আবেদ- যিনি আবেদ সাহেবের দ্বিতীয় স্ত্রী ছিলেন। শিলুর অবশ্য প্রথম ঘরের স্বামীর পুত্র এই মোকাররম। তবে বাবা আবেদের মতো মার্কোও জীবন সঙ্গিনী হিসাবে চারটি বিয়ে করেছেন। তবে আবেদ পুত্র মার্কো মুলত  ব্যবসায়িক ভাবে প্রতারণা, ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ করে ফেরত না দেয়া , অবৈধভাবে সম্পদের মালিক বনে যাওয়া, বিদেশে টাকা পাচার বা মানি লন্ডারিং করা- এমন কিছু তাঁর পেশাভিত্তিক অনভিপ্রেত কর্ম হলেও নেশা তাঁর অন্যদিকে। তিনি ধনীর দুলালি খোঁজ করেন। অতঃপর তাঁদের সাথে প্রেমের অভিনয় করে বিয়ে করেন, একসময় প্রয়োজন ফুরিয়ে গেলে তাঁকে বিদায় জানানোর চেষ্টায় থাকেন। আর এভাবেই তিনি নারী খেকো হয়ে একের পর এক কিশোরী, তরুনী, যুবতী এমন কি জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের মহিলাকে বিছানায় নিয়ে যাওয়াটাকে তাঁর অভ্যাসে পরিণত করেছেন- এমন খবরের সত্যতা মিলেছে। তাঁর ঘনিষ্ঠ পর্যায়ের একজন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক থেকে বলেছেন জননেতাকে,”  আবেদ পুত্র ‘মার্কো’র মাথায় যত চুল, তার চেয়েও বেশী নারীর সাথে তিনি সহবাস করেছেন।”

এদিকে মার্কোর জীবনের উপরে ওঠার সিঁড়িতে এক সজ্জন চরিত্রের নারী রয়েছেন বলে জানা গেছে। যিনি অফিসিয়ালি তাঁর তৃতীয় স্ত্রী বলে পরিচিত। তাঁর থেকে নেয়া অর্থের উপরেই আজ মোকাররম মার্কোর শত শত কোটি টাকার সম্পদ গড়ে উঠেছে। যদিও সেই স্ত্রীকে তিনি বুঝিয়েছিলেন, সব কিছু তোমার আর আমার অর্ধেক অর্ধেক ! হালাল ব্যবসার কথাই বলেছিলেন তিনি। অথচ সূত্র বলছে, এই মোকাররম কানাডায় টাকা পাচার করেছেন শত কোটি টাকার উপরে, সে সম্যক জানা গেছে বৈকি !

16788198_10154696048138891_728296598_nসবার আগে জানা দরকার, মোকাররম এই জীবনে কতগুলো নারীর সাথে সংসার করেছেন, কা’দের সাথে লিভ টুগেদারে থেকেছেন, কা’দের সাথে পরকীয়া করেছেন, কা’দের সাথে গ্রুপ সেক্স করেছেন, কা’দের  সাথে শারীরিক সন্তুষ্টির মাধ্যমে সন্তানের বাবা হয়েছেন !

 অনুসন্ধানে দেখা গেছে তিনি বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে দুনিয়ার একজন উদাহরণ পুরুষ হয়ে নেতিবাচক বাস্তবতাকে কাছে টেনেছেন।  যেন সুন্দর চেহারার আড়ালে নায়ক না হয়ে খলনায়ক ! চলুন, পাঠক বর্গ- প্রমাণ সহকারে এগোন যাক। 16790560_10154696121158891_51991808_n

মার্কো ও তাঁর জীবনে আসা হাজার হাজার নারীর সাথে সহবাসের মধ্যে কয়েকজনকে নিম্নোক্ত আঙ্গিকে দেখানোর সুযোগ থেকে যায়ঃsafia

 নাম তাঁর সেফতা খান। মোকাররমের প্রথম স্ত্রী। যিনি অত্যন্ত উচ্চশ্রেণির প্রতিনিধি ছিলেন। সজ্জন চরিত্রের এই নারী মোকাররম কে বিয়ে করে অসুখী হয়ে পড়েন। যখন তিনি দেখতে পান এই মার্কো বহুনারীতে আসক্ত। এর পর তাঁদের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায়।

এর পর মোকাররম বিয়ে করেন সাফার আলী মলি নামক আরেক নারীকে। বাবা সাজ্জাদ আলীর একমাত্র কন্যা ছিলেন এই মলি।  তবে নারী আসক্তিতে থাকা মার্কোর সাথে সময়গুলো ভাল যায় নাই মলির। দাম্পত্য কলহ ছিল। সেই মলি অবশ্য মারা যান একসময়।

16809615_10154698862213891_847420442_nঅতঃপর বিয়ে করেন তিনি সজ্জন চরিত্রের জিবা আমিন খানকে। যিনি এখনো তাঁর স্ত্রী হিসাবে বিদ্যমান রয়েছেন। জিবা উচ্চ শিক্ষিত এবং লন্ডনে পড়াশোনা করেছেন। তবে চতুর মার্কো তাঁকে বাগিয়ে নেন ব্যবসার কথা বলে। মুলত জিবার বিনিয়োগেই মার্কোর কপাল খুলে যায়। তবে জিবাকে শোনা যায় সব কিছু থেকেই অর্থাৎ বিষয়- বৈষয়িক থেকে বঞ্চিত করেছে মার্কো।  তাঁদের  একমাত্র সন্তানকে দেখভালের অবস্থায় পর্যন্ত নেই মার্কো। দুইজনের মধ্যকার সব ব্যবসা জালিয়াতি করে শেয়ার নিজের করে নিয়েছেন মোকাররম তাও শোনা যাচ্ছে। যা গড়িয়েছে আদালত পর্যন্ত বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

rokhsandaরোখসান্দা ইয়াসমিন। বহুল আলোচিত নারী। যিনি ২০১৪ সালে তাঁর পুত্রসহ অস্ত্র এবং মাদক সহ গ্রেফতার হয়েছিলেন। এই রোখসান্দার সাথে লিভ টুগেদার করতেন এই মার্কো। শুধু সেটাই নয়, রোখসান্দা তাঁকে তরুণ নারী সরবরাহ করতো। রাজধানীর বনানীতে বসবাস করা রোখসান্দা পরবর্তীতে জামিনে বের হয়ে আসেন। এখনো রোখসান্দার সাথে মার্কোর সম্পর্ক আছে। কথিত আছে, রোখসান্দার সাথে মোকাররম মার্কোর মাদক ও অস্ত্রের ব্যবসাও আছে রাতের আঁধারে। যদিও এটার বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো প্রমাণাদি জননেতা হাতে পায় নাই।

ঠিক এই মুহূর্তে যার সঙ্গে মোকাররম একসঙ্গে এক ছাদের নীচে বসবাস করছেন, তাঁর নাম হল জাহান সুলতানা।16809714_10154695557788891_651246020_n এই নারী মোকাররমের সিডিএল কোম্পানিতে চাকুরী করতেন।  মার্কোর সিডিএল অফিসের প্রায় সবাই যখন জেনে যায় তাঁদের মধ্যকার অবৈধ সম্পর্ক তখন একদিন তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রীও (ব্যবসায়িক অংশীদার) হাতেনাতে ধরে ফেলেন, যখন দেখা যায় মার্কো তাঁর প্যান্টের চেইন খুলে আছেন, আর তাঁর সামনে বসে আছেন এই জাহান সুলতানা !

16808438_10154695924838891_1295096149_nঅত্যন্ত নিম্নবিত্ত ঘরের এই মেয়ে এক রকম মোকাররম কে জুড়ে আছেন। জাহানের এক ভাইকে  মোকাররম চাকুরীও দিয়েছেন। মোদ্দকথা, প্রেমের আপাত মূল্য মোকাররম দিয়েছেন এই মেয়ের প্রতি। হ্যাঁ, নেপথ্যে তাঁদের একটি সন্তান রয়েছে যে !

16788245_10154695571258891_2079768707_nএবার আর দেশের মাটিতে নয়। কানাডায় আরেকটি স্ত্রী রয়েছে এই মোকাররমের। যার নাম ইয়াসমিন সুলতানা স্বর্গ। রয়েছে এই ঘরেও আরেকটি বাচ্চা। যখনই মোকাররম কানাডায় যান তখন তাঁদের সংসার চলে।

16810002_10154695575443891_878032908_nএবার আরো চমকে যাওয়ার মতো বাস্তবতা। তাহসিনা আমিন, যিনি মোকাররমের সিডিএল কোম্পানির হিসাব বিভাগে চাকুরীরত- সেই তাহসীনার সাথেও মোকাররমের রয়েছে শারীরিক সম্পর্ক। কথিত আছে, মার্কোর অর্থনৈতিক চুরি, প্রতারণা ও ব্যবসার গুমোট বা গোপন খবর তাঁর কাছে থাকাতে তিনি একটা অদৃশ্য রহস্যময় সম্পর্ক রেখে চলেছেন তাঁর সাথে। সেটা অর্থ দিয়ে, শারীরিক তৃষ্ণা মিটিয়ে, এমন কি এই নারী তাঁর জন্য কিশোরী থেকে শুরু করে নানা বয়সের নারী সরবরাহ করে থাকেন এই মার্কোর জন্য।

16790839_10154695969238891_1738081429_nমার্কো মুলত ইয়াবা এবং সীসা খেতে খুব পছন্দ করেন। দেশের ইয়াবা সুন্দরীদের সাথে এই জন্য মধ্যরাতে প্রায় তাঁকে দেখা যায়। এমনও আছে, এসব মাদক সেবন করে কয়েকদিনের জন্য তিনি হারিয়ে যান। আর এসব হারিয়ে যাওয়া নারীর একজন নাজিয়া রাফী। তরুণ এই নারীর সাথে তাঁর সব ধরণের মানসিক ও শারীরিক সম্পর্ক রয়েছে। 16754627_10154696110668891_965141467_n

মোকাররম হোসেন মার্কো মুলত বিকিনি কিলার খ্যাত চার্লস শোভ্রাজের মতই এক চরিত্র ! নারী পটাতে ওস্তাদ ! আর তাঁর নারী নির্বাচনে শ্রেণি বিভেদ বা বয়স কিছু নয়। তাঁর লক্ষ্য একটাই, সেটা হল বিছানা সম্পর্ক। তবে জীবনে দুইজন নারীকে তিনি অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করেছিলেন। যাদেরকে তিনি বিয়ে করেছিলেন একদা। 16808625_10154695983148891_2058716889_n

সূত্র অনুযায়ী মোকাররম ছিল চাকুরীজীবি। কনকর্ড গ্রুপের মার্কেটিং ডিভিশনে ছিলেন। একদিন স্বপ্ন দেখেন, তাঁকে বড় হতে হবে। তখন তিনি দুই অবস্থা সম্পন্ন নারীকে জীবন সঙ্গিনী করে তাঁদের কাছ হতে তাঁর ব্যবসার পুঁজি নেন। তাঁদেরকে বলেন, তোমারাও এই ব্যবসার শেয়ার হোল্ডার থাকবে। তবে সেই পুঁজি নিয়ে কথা রাখেন নি মার্কো। নিয়েছেন তাঁদের শরীর, কেড়ে নিয়েছেন মন, ভালবাসেন নি। একটা প্রফেসর প্ল্যানে কোটি কোটি টাকা তাঁদের কাছ থেকে নিয়ে বনেছেন হাজার কোটি টাকার মালিক। একসময় রাজনৈতিক ও সামজিক ক্ষমতা হাতের মুঠোয় চলে এলেই ধরা পড়েছেন সিগমন্ড ফ্রয়েডের তত্বে। যেখানে সামাজিক ক্রমবিকাশের মুল চালিকাশক্তি সেক্স কে দেখেছেন মার্কো। তবে সেই সেক্সকে তিনি উপভোগ করতে যেয়ে হাজার হাজার নারীর সঙ্গে সহবাস করেছেন। কথায় আছে পুরোনো ও নতুন নারী না হলে অহোরাত্র পার হয় না মার্কোর। এ যেন এক নৃশংস বিকৃতি ! যেন সিরিয়াল সেক্স কিলার ! এদিকে দুর্নীতি দমন কমিশন হতে উচ্চ আদালতও নাকি তাঁকে খুঁজছে ! অবৈধ পন্থায় সম্পদ অর্জন, বিদেশে টাকা পাচার ও সজ্জন নারীদের ঠকিয়ে খুব বেশিদিন আসলে ভাল থাকা  যায় কি ?

প্রথম পর্বঃ আবেদের পুত্র ‘মার্কো’ জীবনে বিল্ডিং বানানোর চেয়েও বিয়ে ও পরকীয়া করেছেন বেশী

তৃতীয় পর্ব প্রকাশিত হবে রবিবার বেলা ২টায়, ততক্ষন পর্যন্ত থাকুন জননেতার সাথেই।  

নী/৭১৭/জ